মঙ্গলবার, ১৫ এপ্রিল, ২০১৪

জেনে নিন প্রাকৃতিক উপায় মশা তাড়াবার পদ্দতি।

মশার কামড় শুধু যে বিরক্তিকর তা কিন্তু নয় বরং মশার কামড় থেকে হতে পারে ম্যালেরিয়া বা ডেঙ্গুর মত মারাত্মক রোগ। মশা তাড়ানোর জন্য আমরা সব সময়েই দোকান থেকে কয়েল বা স্প্রে কিনে নিয়ে আসি। কিন্তু এগুলোর আছে নানান রকম স্বাস্থ্যঝুঁকি। আবার খুব ভালো কাজ যে হয়,তাও কিন্তু না। এ ধরনের উষ্ণমন্ডলীয় চরম শত্রুর হাত থেকে প্রাকৃতিক উপায় কিভাবে নিষ্কৃতি পাওয়া যায়, তা ভেবে দেখতে পারেন।
ফ্যান চালু করুন
মশারা খুবই হালকা। মশাদের উড়বার গতিবেগের চাইতে ফ্যানের ঘুরবার গতি অনেক বেশি হওয়াতে সহজেই মশাদের ব্লেডের কাছে টেনে নেয়। আপনার বসার স্থান কিংবা ডেক বা যেসব স্থান থেকে মশারা খুব সহজে আপনার গৃহে প্রবেশ করতে পারে, এমনসব স্থানে মশাদের আগমন সময়ে আপনার টেবিল ফ্যান বা পেডাল ফ্যানটি চালু রাখুন। মশাদের হাত থেকেও যেমন নিস্কৃতি পাবেন তেমনি গরমেও পাবেন আরাম।
লেমন গ্রাস লাগান
থাই লেমন গ্রাসে আছে ‘সাইট্রোনেলা অয়েল’যা থেকে বের হয় একধরনের শক্তিশালী সুগন্ধ। এই সুগন্ধ কিন্তু মশাদের যম। মশারা এর কাছেও ঘেঁষে না। ফলে আপনার আশেপাশে লেমন গ্রাসের ঝাঁড় থাকলে মশারা আপনাকে খুঁজে পাবে না। আর লেমন গ্রাস দেখতেও কিন্তু মন্দ নয়। এমনসব স্থানে এসব গাছের টব রাখুন যেখানে সকাল বিকাল কিংবা রাতে পরিবারের অন্যদের নিয়ে কিংবা বন্ধু বান্ধব নিয়ে আড্ডা বা সময় কাটান। এভাবে থাকুন মশা মুক্ত।
মশাদের পছন্দের রঙের পোষাক এড়িয়ে চলুন
কি অবাক হচ্ছেন! হ্যাঁ কিছু কিছু প্রজাতির মশারা কয়েকটি গাঢ় রঙের প্রতি আকৃষ্ট হয় যেমন কালো, নীল আর লাল। আর তারা গরমের প্রতিও সংবেদনশীল। তাই ঠান্ডা রাখুন ঘর আর পোষাক পড়ুন হালকা রঙের। সেই সাথে সম্ভব হলে মশাদের আক্রমন সময়ে সুগন্ধি পারফিউম কিংবা লোশন না ব্যবহার করাই ভাল।
ক্যাটনিপ অয়েল
ক্যাটনিপ অয়েলের nepetalactone  নামক পদার্থ মশা তাড়াতে DEET (Diethyle-Meta-toluamide)  থেকে প্রায় ১০ গুন বেশি শক্তিশালী। ক্যাটনিপ অয়েল মাখালে মশারা ধারেকাছেও ঘেঁষবে না।
রসুনের স্প্রে
হ্যাঁ! রসুনের স্প্রে মশা তাড়াতে খুবই কার্যকরী প্রাকৃতিক উপায়। পাঁচ ভাগ পানিতে এক ভাগ রসুনের রস মেশান। মিশ্রনটি একটি বোতলে ভরে শরীরের যেসব স্থানে মশারা কামড়াতে পারে সেসব স্থানে স্প্রে করুন। যেকোন ধরনের রক্ত চোষারা আপনার ধারেকাছেও আসবে না।
খেয়াল রাখুন যেন কোথাও পানি জমে না থাকে
ঘরের আনাচে-কানাচে কিংবা উঠোনে পানি জমে থাকলে সেখানে মশারা বংশবিস্তার করতে পারে। তাই যেখানেই পানি জমুক না কেন, তা সরিয়ে ফেলুন। মশার বংশবিস্তার রোধ করুন।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন